সজনে ডাঁটার গুন

সজনে ডাঁটায় রয়েছে প্রচুর ফাইবার। রয়েছে ব্যাথানাশক উপাদান।একে বলা হয় খনিজ শক্তির ভান্ডার। এটি প্রচুর ঔষধী গুন সম্পন্ন শক্তি।প্রচুর ফাইবার থাকার কারনে কোষ্ঠ্যকাঠিন্য দূর করে,হজমেও সহায়ক।পেপটিক আলসার রোধেও ভূমিকা পালন করে। মুখের রুচি ফেরানো ও ক্ষুধা বাড়ানোর কাজ করে।কোন অপারেশন বা আঘাতের পর সজনে ব্যাথা কমাতে সাহায্য করে।এটি এন্টি ব্যাক্টেরিয়াল গুন সম্পন্ন যা রোগ প্রতিরোধ

[Continue Reading ...]

দাঁতের ব্যথা দ্রুত নিরাময়ের কয়েকটি উপায়

অনেকের কাছেই তীব্র যন্ত্রনার অপর এক নাম দাঁতের ব্যথা। প্রয়োজন মত দাঁতের যত্ন না নিলে দেখা দিতে পারে নানা সমস্যা। দাঁত ব্যথার রয়েছে বড়ই বাজে একটা অভ্যাস। রাতের বেলায় যখন সবাই ঘুমিয়ে পড়েছে, ডেন্টিস্ট যখন চেম্বার বন্ধ করে বাড়ি চলে গেছে তখনই দাঁত ব্যথা চরম আকৃতি ধারণ করে। তখন সকাল পর্যন্ত ব্যথা সহ্য করা ছাড়া উপায় থাকে না। অনেকেই আমরা পেইনকিলার খেয়ে কিছু সময়ের জন্য ব্যাথা কমিয়ে র

[Continue Reading ...]

মধুর উপকারিতা

প্রাচীনকাল থেকেই অসাধারন ঔষধি গুনের কারনে মধু ব্যবহ্রত হয়ে আসছে। মধু হল মহান আল্লাহ্‌ তায়ালা প্রদত্ত অপূর্ব এক নেয়ামত। প্রাচীনকাল থেকেই মানুষ প্রাকৃতিক খাদ্য হিসেবে,মিষ্টি হিসেবে,চিকিৎসা ও সৌন্দর্য চর্চা সহ নানাভাবে মধু ব্যবহার করে আসছে।মধুর মধ্যে রয়াছে ভিটামিন বি১,বি২,বি৩,বি৫,বি৬,আয়োডিন,জিংক ও কপার সহ অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল উপাদান যা আমাদের দে

[Continue Reading ...]

গ্যাস্ট্রিক সমস্যা সমাধানের ৮টি দারুণ উপায়:

এক মাস রোজার পর হঠাৎ করে পোলাও, বিরিয়ানি, জর্দা, সেমাই ইত্যাদি ভারী খাবার খাওয়ায় গ্যাস বা অ্যাসিডিটির সমস্যা ব্যাপকভাবে দেখা দেয় ঈদের সময়টাতে। তাই বলে কি ঈদের খাওয়া দাওয়া বন্ধ থাকবে? তাও কি সম্ভব! খাওয়া দাওয়ার পাশাপাশি যদি গ্যাস্টিক থেকে রক্ষার ঘরোয়া কিছু নিয়ম পালন করেন তবে গ্যাস্টিকের সমস্যা আপনার ঈদের আনন্দকে মাটি করতে পারবে না। আর ডাক্তারের কাছেও দৌড়াতে হবে না যখন তখন। আসু

[Continue Reading ...]

পাইলস বা অর্শ কি, কেন হয়, চিকিৎসায় করনীয় কি?

পাইলস হলো পায়ুপথে এবং মলদ্বারের নিচে অবস্থিত প্রসারিত এবং প্রদাহযুক্ত ফোলে ওঠা ধমনী৷ মলত্যাগের সময় কষা হলে অথবা গর্ভকালীন সময়ে এই সমস্ত ধমনীর উপর চাপবেড়ে গেলে পাইলসের সমস্যা দেখা দেয়।

কি কি কারণে পাইলস হয়?
* দীর্ঘমেয়াদী অনিদ্রায় ভোগা ও শরীর কষা থাকা৷
* দীর্ঘস্থায়ী পায়খানা কষার সমস্যা দেখা দিলে৷
* মলত্যাগের সময় অতিরিক্ত চাপ প্রয়োগ করা ও বেশি সময় ধরে বসে থাকা৷
* অস

[Continue Reading ...]