News Title: সুস্থ থাকতে প্রতিদিন কখন ও কতক্ষণ হাঁটবেন?

সুস্থ থাকতে হলে প্রতিদিন হাঁটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সকালে বা বিকালে হাঁটলে শরীরে খুব ভালো ব্যায়াম হয় এবং ঘামের মাধ্যমে শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের হয়ে যায় ও রোগ প্রতিরাধ ক্ষমতা বাড়ে।

তবে আধুনিক জীবনযাপনের ফলে এখন দৈনন্দিন শারীরিক কার্যক্রম হচ্ছে না বললেই চলে। যার ফলে শরীরে বাসা বাঁধছে বিভিন্ন অসুখ-বিসুখ।
যেমন ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, আথ্র্রাইটিস, ওবেসিটি বা স্থূলতা, মাংসপেশির শক্তি কমে যাওয়া, অষ্টিওপোরোসিস বা হাড়ের ভঙ্গুরতা ইত্যাদি।

সুস্থ থাকতে হলে হাঁটার বিকল্প নেই। তবে এখন প্রশ্ন হলো– কখন ও কতক্ষণ হাঁটবেন?

কখন ও কত সময় হাঁটবেন

প্রতিদিন কমপক্ষে ৪০-৪৫ মিনিট হাঁটুন। এ ছাড়া যদি হাঁটতে ভালো লাগে তবে হাঁটার সময়টা ১ ঘণ্টা পর্যন্তও হতে পারে। যারা বেশি হাঁটতে পারেন না, তারা ওই ৪০ মিনিট হাঁটার সময়ে ১০ মিনিটের বিরতি দিতে পারেন। পাঁচ দিন ৩০ মিনিট করে ১৫০ মিনিট হাঁটলেও আপনি সুস্থ থাকবেন।

তবে কখনই ৩০ মিনিটের কম হাঁটা উচিত হবে না। সকালে বা বিকালে হাঁটা শরীরের জন্য ভালো।

হাঁটার গতি কেমন হবে

হাঁটার সময় অনেকে বুঝতে পারেন না যে, হাঁটার গতি কেমন হবে। তবে হাঁটার জন্য তেমন নির্দিষ্ট কোনো গতি নেই। প্রথমে ধীরে ধীরে হাঁটা শুরু করার পর আস্তে আস্তে গতি বাড়াতে হবে। শরীরের সঙ্গে তাল মিলিয়ে যতটুকু পারা যায় গতি বাড়াতে হবে।

লেখক: বাত-ব্যথা, প্যারালাইসিস রোগে ফিজিওথেরাপি বিশেষজ্ঞ, চেয়ারম্যান এবং চিফ কনসালট্যান্ট, ঢাকা সিটি ফিজিওথেরাপি হাসপাতাল, ধানমণ্ডি, ঢাকা।


News Title: করোনা: এ সময় নিরাপদে ভ্রমণ করতে করণীয়

সরকারি ছুটি শেষ হওয়ার পর দেশের মানুষের জীবনযাত্রা অনেকটাই স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে।

খুলেছে সরকারি-বেসরকারি অফিস ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান। এ ছাড়া বাস, ট্রেন, লঞ্চ ও বিমান চলাচল শুরু হয়েছে।

তবে এ সময় ভ্রমণ মোটেও নিরাপদ নয়। তবু জরুরি প্রয়োজনে ভ্রমণ করতে চাইলে মানতে হবে বাড়তি সতর্কতা।

স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদনে নিরাপদে ভ্রমণের কিছু পরামর্শ দেয়া হয়েছে।


১. এ সময় ভ্রমণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার বিকল্প নেই। সংক্রমণ রোধে বাস, ট্রেন ও বিমান ভ্রমণে মানতে হবে সামাজিক দূরত্ব।

২. সঙ্গে থাকা ব্যাগ জীবাণুমুক্ত করতে হবে যানবাহন থেকে নেমেই।

৩. ব্যক্তিগত হ্যান্ড স্যানিটাইজার সঙ্গে রাখুন। বাসের আসন জীবাণুমুক্ত করার জন্য সঙ্গে রাখতে হবে জীবাণুনাশক স্প্রে।

৪. বাসের যে কোনো স্থান স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন। এ সময় গ্লাভস পরবেন।

৫. বিমান ও ট্রেনের শৌচাগার খুব বেশি প্রয়োজন না হলে ব্যবহার করবেন না।

৬. হাত দিয়ে মুখমণ্ডল স্পর্শ করবেন না ও মুখ থেকে মাস্ক খুলবেন না। অন্য যাত্রীদের থেকে দূরত্ব বজায় রাখুন। চেষ্টা করুন জানালার পাশের আসনে বসার।

৭. বাইরের কেনা খাবার খাবেন না। বাসার তৈরি খাবার সঙ্গে রাখুন।


End of Today's News

সজনে ডাঁটার গুন

সজনে ডাঁটায় রয়েছে প্রচুর ফাইবার। রয়েছে ব্যাথানাশক উপাদান।একে বলা হয় খনিজ শক্তির ভান্ডার। এটি প্রচুর ঔষধী গুন সম্পন্ন শক্তি।প্রচুর ফাইবার থাকার কারনে কোষ্ঠ্যকাঠিন্য দূর করে,হজমেও সহায়ক।পেপটিক আলসার রোধেও ভূমিকা পালন করে। মুখের রুচি ফেরানো ও ক্ষুধা বাড়ানোর কাজ করে।কোন অপারেশন বা আঘাতের পর সজনে ব্যাথা কমাতে সাহায্য করে।এটি এন্টি ব্যাক্টেরিয়াল গুন সম্পন্ন যা রোগ প্রতিরোধ

[Continue Reading ...]

দাঁতের ব্যথা দ্রুত নিরাময়ের কয়েকটি উপায়

অনেকের কাছেই তীব্র যন্ত্রনার অপর এক নাম দাঁতের ব্যথা। প্রয়োজন মত দাঁতের যত্ন না নিলে দেখা দিতে পারে নানা সমস্যা। দাঁত ব্যথার রয়েছে বড়ই বাজে একটা অভ্যাস। রাতের বেলায় যখন সবাই ঘুমিয়ে পড়েছে, ডেন্টিস্ট যখন চেম্বার বন্ধ করে বাড়ি চলে গেছে তখনই দাঁত ব্যথা চরম আকৃতি ধারণ করে। তখন সকাল পর্যন্ত ব্যথা সহ্য করা ছাড়া উপায় থাকে না। অনেকেই আমরা পেইনকিলার খেয়ে কিছু সময়ের জন্য ব্যাথা কমিয়ে র

[Continue Reading ...]

মধুর উপকারিতা

প্রাচীনকাল থেকেই অসাধারন ঔষধি গুনের কারনে মধু ব্যবহ্রত হয়ে আসছে। মধু হল মহান আল্লাহ্‌ তায়ালা প্রদত্ত অপূর্ব এক নেয়ামত। প্রাচীনকাল থেকেই মানুষ প্রাকৃতিক খাদ্য হিসেবে,মিষ্টি হিসেবে,চিকিৎসা ও সৌন্দর্য চর্চা সহ নানাভাবে মধু ব্যবহার করে আসছে।মধুর মধ্যে রয়াছে ভিটামিন বি১,বি২,বি৩,বি৫,বি৬,আয়োডিন,জিংক ও কপার সহ অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল উপাদান যা আমাদের দে

[Continue Reading ...]

গ্যাস্ট্রিক সমস্যা সমাধানের ৮টি দারুণ উপায়:

এক মাস রোজার পর হঠাৎ করে পোলাও, বিরিয়ানি, জর্দা, সেমাই ইত্যাদি ভারী খাবার খাওয়ায় গ্যাস বা অ্যাসিডিটির সমস্যা ব্যাপকভাবে দেখা দেয় ঈদের সময়টাতে। তাই বলে কি ঈদের খাওয়া দাওয়া বন্ধ থাকবে? তাও কি সম্ভব! খাওয়া দাওয়ার পাশাপাশি যদি গ্যাস্টিক থেকে রক্ষার ঘরোয়া কিছু নিয়ম পালন করেন তবে গ্যাস্টিকের সমস্যা আপনার ঈদের আনন্দকে মাটি করতে পারবে না। আর ডাক্তারের কাছেও দৌড়াতে হবে না যখন তখন। আসু

[Continue Reading ...]

পাইলস বা অর্শ কি, কেন হয়, চিকিৎসায় করনীয় কি?

পাইলস হলো পায়ুপথে এবং মলদ্বারের নিচে অবস্থিত প্রসারিত এবং প্রদাহযুক্ত ফোলে ওঠা ধমনী৷ মলত্যাগের সময় কষা হলে অথবা গর্ভকালীন সময়ে এই সমস্ত ধমনীর উপর চাপবেড়ে গেলে পাইলসের সমস্যা দেখা দেয়।

কি কি কারণে পাইলস হয়?
* দীর্ঘমেয়াদী অনিদ্রায় ভোগা ও শরীর কষা থাকা৷
* দীর্ঘস্থায়ী পায়খানা কষার সমস্যা দেখা দিলে৷
* মলত্যাগের সময় অতিরিক্ত চাপ প্রয়োগ করা ও বেশি সময় ধরে বসে থাকা৷
* অস

[Continue Reading ...]