সাধারণ ফ্লু নাকি করোনা? জেনে নিন মিল-অমিল

 

বছরের এই সময়ে আবহাওয়া পরিবর্তনজনিত কারণে জ্বর আর ঠান্ডার সংক্রমণ হয়ে থাকে প্রতিবছর। কিন্তু এবার সাধারণ এই স্বাস্থ্য সমস্যাগুলোই হয়ে উঠছে ভয়ের কারণ। আর তার কারণ হলো বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া মহামারি করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯)। এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণগুলোর সঙ্গে মিল থাকায় সর্দি-কাশি হলেও সবাই ভয়ে পাচ্ছেন, করোনা হলো কি না। 

দুই ধরনের জ্বরে এত বেশি মিল রয়েছে যে, চিকিৎসকরাও রোগ নির্ণয়ে হিমশিম খাচ্ছেন। সাধারণ ফ্লু আর করোনা ভাইরাসের মধ্যে কিছু মিল থাকলেও, কিছু অমিল রয়েছে। সবগুলো জানা থাকলে আপনার রোগ নির্ণয় করা সহজ হবে। সে সঙ্গে অযাচিত ভয় থেকেও বাঁচতে পারবেন। 

সাধারণ ফ্লু করোনার মধ্যে মিল

দুই ধরনের ফ্লু-ই ভাইরাসবাহিত। দুটোই সংক্রমণজনিত। এই দুটো ফ্লু-ই মানুষের দেহ থেকে ছড়াতে সক্ষম। সঠিক সময়ে সচেতন না হলে দুই ধরনের ফ্লু-ই নিউমোনিয়ার সৃষ্টি করতে পারে। 

সাধারণ ফ্লু করোনার মধ্যে অমিল

দুটো স্বাস্থ্য সমস্যাই ভাইরাসজনিত হলেও ভাইরাস দুটি সমগোত্রীয় নয়। সাধারণ ফ্লু হয়ে থাকে ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসের প্রকোপে। অন্য দিকে কোভিড-১৯ এর কারণ করোনা গ্রুপের ভাইরাস, যা সার্স ভাইরাসের কাছাকাছি গোত্রের। 

সাধারণ ফ্লু বা ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস অনেক ধীর গতিতে ছড়ায়। সেই তুলনায় করোনা ছড়ায় অতি দ্রুত। 

সাধারণ ফ্লুর ক্ষেত্রে ভাইরাসের সংস্পর্শে আসার ২ থেকে ৩ দিনের মধ্যে অসুখ দেখা দেয়। করোনার বেলায় অসুখ দেখা দিতে সময় নেয় ৭ থেকে ১৪ দিন। 

সাধারণ ফ্লু হলে জ্বর ১০৩-১০৪ ডিগ্রি পর্যন্ত উঠতে পারে যা ওষুধ খেলে কমতে শুরু করে। কিন্তু করোনার ক্ষেত্রে জ্বর হয় প্রবল এবং তা সহজে নামতে চায় না। এমনকি ওষুধও কাজ করে না। 

করোনার সবগুলো লক্ষণ আপনার কিংবা পরিচিত কারও দেহে প্রকাশ পেলে চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন এবং নির্দিষ্ট পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত হোন আপনার করোনা হয়েছে কি না।